এসাইনমেন্ট সকল শ্রেণি

বিশ্বব্যাপী ক্ষুদ্রায়তন একমালিকানা ব্যবসায়ই এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় উক্তিটির যথার্থতা নিরুপণ | এইচএসসি এসাইনমেন্ট সমাধান/উত্তর ২০২১ সালের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (৭ম সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৫ | ২০২১ সালের এইচএসসি ৭ম সপ্তাহের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (১ম পত্র) এসাইনমেন্ট সমাধান /উত্তর

           

এইচএসসি এসাইনমেন্ট সমাধান/উত্তর ২০২১ সালের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (৭ম সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৫  

বিশ্বব্যাপী ক্ষুদ্রায়তন একমালিকানা ব্যবসায়ই এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় উক্তিটির যথার্থতা নিরুপণ

ক নং প্রশ্নের উত্তর 

একমালিকানা ব্যবসায়ের ধারণা : 

সাধারণভাবে একজন ব্যক্তি মালিকানায় প্রতিষ্ঠিত ,পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত ব্যবসায়কে একমালিকানা ব্যবসায় বলে ।

অন্যভাবে বলা যায় , মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে যখন কোনাে ব্যক্তি নিজ দায়িত্বে মূলধন যােগাড় করে কোনাে ব্যবসা গঠন ও পরিচালনা করে এবং উক্ত ব্যবসায়ে অর্জিত সকল লাভ নিজে ভােগ করে বা ক্ষতি হলে নিজেই তা বহন করে , তখন তাকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে ।

উদাহরণঃ ধরা যাক , মামুন একজন মুদি দোকানদার । তিনি তার দোকান পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ নিজেই করে থাকেন । তার ব্যবসায় অন্য কোন অংশীদার নেই । তার ব্যবসায়ের মুনাফার সবটুকুই তিনি একা ভােগ করতে পারেন । আবার লােকসান হলেও তার একাই তা বহন করতে হয় । এ ধরনের ব্যবসায়ী হচ্ছে একমালিকানা ব্যবসায় ।

খ নং প্রশ্নের উত্তর 

নিম্নে একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্যগুলাে চিহ্নিত করা হলাে –

১। একমালিকানা ব্যবসায়ের মালিক সব সময় একজন ব্যক্তি যিন নিজ উদ্যোগে পুঁজির সংস্থান করেন , ব্যবসায় পরিচালনা করেন ও ঝুঁকি বহন করেন । 

২। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই একমালিকানা ব্যবসায় ক্ষুদ্র আকারের হয়ে থাকে । মূলধনের স্বল্পতা ও একজন ব্যক্তির মালিকানার জন্য এর আয়তন সাধারণত ছােট হয়ে থাকে ।

৩। একমালিকানা ব্যবসায়ের সকল ঝুঁকি মালিককে এককভাবে বহন করতে হয় । 

৪। আইনের চোখে একমালিকানা ব্যবসায়ের পৃথক কোনাে সত্তা নেই । মালিক ও ব্যবসায় অভিন্ন । এ জাতীয় ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ দায় – দায়িত্ব মালিকের । ফলে তার দায় অসীম । প্রয়ােজনে ব্যক্তিগত সম্পত্তি বিক্রয় করে ব্যবসায়ের দায় পরিশােধ করতে হয় ।

৫। পুরাে ব্যবসায়ের একক মালিকানার জন্য লাভের সবটা মালিক একা ভােগ করেন । আবার লােকসানের সম্মুখীন হলে মালিককেই এককভাগে তা বহন করতে হয় । 

৬। একমালিকানা ব্যবসায়ের স্থায়িত্ব মালিকের ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল । কারণ ব্যবসায় চালু রাখা বা বন্ধ করা মালিকের আগ্রহের উপর নির্ভর করে।

৭। একমালিকানা ব্যবসায় পণ্য উৎপাদন ও বিপণন মালিকের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে । তিনি যে পণ্য উৎপাদন ও বিপণন করা ভালাে হবে মনে করেন সেটি করে থাকেন । 

৮। একমালিকানা ব্যবসায় অনেক সময় ব্যবসায়ীকে বিনিয়ােগের ক্ষেত্রে বেগ পেতে হয় । কারণ তার ব্যবসায়ের সমস্ত বিনিয়ােগ তারনিজেকেই করতে হয় ।

গ নং প্রশ্নের উত্তরঃ 

এক মালিকানা ব্যবসায়ের গুরত্ব বর্তমান বৃহদায়তন উৎপাদন যুগে প্রাচীন ও ক্ষুদ্রায়তন প্রকৃতির এক মালিকানা ব্যবসায়ের গুরত্ব হ্রাস পাওয়ার কথা থাকলেও অদ্যাবধি এ ব্যবসায়ের গুরত্ব কমেনি । প্রতিটা সমাজে তথা বাংলাদেশে এটা এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যবসায় সৎগঠন । নিমে এক মালিকানা ব্যবসায়ের গুরত্ব তুলে ধরা হলােঃ 

• ব্যাপক সেবা প্রদানঃ স্বল্প মূলধন নিয়ে অতি সহজে এ ব্যবসায় শহরের কেন্দ্রস্থল হতে শুরু করে গ্রাম – গঞ্জের সর্বত্র গড়ে উঠেছে । তাই প্রয়ােজনীয় পণ্য বা সেবা সামগ্রী সহজে ভােক্তা সাধারনের হাতে তুলে দিয়ে ব্যবসায় ব্যাপক জনগােষ্ঠীকে সেবা প্রদান করতে পারে । 

• সহজ কর্মসংস্থানঃ সামান্য কিছু মূলধন হলে যে কেউ এক মালিকানা ব্যবসায়ের মাধ্যম নিজ কর্মসংস্থান করতে পারে । তাই বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি লােক এক মালিকানা ব্যবসায়ে জড়িত থেকে নিজের কর্মসংস্থান করছে । 

• স্বল্প মুলধনঃ আমাদের দেশের অধিকাংশ জনগন গরিব বিধায় তাদের পক্ষে বৃহদায়তন ব্যবসায় গড়ে তােলা কঠিন । তাই অল্প পুঁজি দিয়ে সহজেই যে কেউ এ জাতীয় ব্যবসায় গঠন করতে পারে । সঞ্চয় ও বিনিয়ােগ বৃদ্ধি ও শহর ও গ্রামাঞ্চলের ব্যাপক জনগােষ্ঠী এরূপ ব্যবসায় গড়ে তােলার জন্য তাদের ক্ষুদ্র সঞ্চয়কে একত্রিত করে এ ধরনের ব্যবসায় গঠন করে । যা দেশের জন্য মুলধন গঠন এবং বিনিয়োগ ও উৎপাদন বৃদ্ধিতে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখে ।

★সম্পদের সুষম বন্টনঃ ক্ষুদ্রায়তনের এক মালিকানা ব্যবসায় দেশের আনাচে কানাচে সর্বত্র ব্যাপকভাবে গড়ে উঠে । ফলে বৃহদায়তন ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে সম্পদ যেভাবে কতিপয় ব্যক্তির হাতে পুঞ্জীভূত হয় এক্ষেত্রে তার কোনই সম্ভাবনা থাকে না । এতে সম্পদের সুষম বণ্টন হয় । আয় ও সম্পদ বৃদ্ধি পায় ? ব্যাপক ভিত্তিতে এক মালিকানা ব্যবসায় গঠিত ও পরিচালিত হওয়ার ফলে তা ব্যাপক জনগােষ্ঠীর আয় রােজগারের ব্যবস্থা ও ব্যক্তিগত সম্পদ বৃদ্ধি করে । এতে জাতীয় আয় ও সম্পদ বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয় । 

• বৃহদায়তন প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা দানঃ বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য কাঁচামাল সরবরাহ এবং তাদের উৎপাদিত পণ্য ও সেবা ভােক্তাদের নিকট পৌছানাের গুর দায়িত্ব এ জাতীয় সংগঠন পালন করে । বৃহদায়তন প্রতিষ্ঠানের উৎপাদনের চাকাকে সচল রাখে এ জাতীয় ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান। 

★সহজ পরিচালনাঃ এ জাতীয় ব্যবসায় পরিচালনা বৃহদাকার ব্যবসায়ের মত জটিল নয় এবং মালিক যেহেতু নিজেই ব্যবসায় পরিচালনা করে সেহেতু এর পরিচালনা ব্যয়ও তুলনামুলক কম হয় । 

• পরিবর্তনশীলঃ সময়ের সাথে সাথে মানুষের রচি ও চাহিদার দ্রুত পরিবর্তন হয় । কেবল একমালিকানা ব্যবসায়ই পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়াতে পারে । 

• স্বাধীন পেশাঃ যারা স্বাধীনচেতা ও স্বাধীন পেশা পছন্দ করে এবং অন্য কারও নিকট জবাবদিহি করতে চায় না , তাদের জন্য এক মালিকানা ব্যবসায় সংগঠন খুবই উপযােগী । 

★দক্ষতা অর্জনঃ স্বল্প মূলধনের ব্যবসায়ের সাথে জড়িত হয়ে ব্যবসায়ী বৃহদায়তন ব্যবসায়ের দক্ষতা অর্জন করতে পারে । 

• জীবনযাত্রার মানােন্নয়ন ও এক মালিকানা ব্যবসায় একদিকে ব্যাপক জনগােষ্ঠির যেমনি আয় ও সম্পদ বৃদ্ধির সুযােগ সৃষ্টি করে অন্যদিকে সর্বত্র সহজে পণ্য ও সেবা সরবরাহ ও সেবা সরবরাহ নিশ্চিত করে ত করে জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে ভুমিকা রাখে ।

ঘ নং প্রশ্নের উত্তর 

একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ নিন্মে বর্ণনা করা হলাে : 

১. অনেকে আছেন যাদের হাতে পর্যাপ্ত অর্থ নেই অথচ ব্যবসায় শুরু করতে আগ্রহী । আত্মকর্মসংস্থানে উদ্যোগী এমন হাজার হাজার লােকের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে উপযুক্ত । যেমন- চায়ের দোকান , ছােট খাবারের দোকান , কুটির শিল্পের দোকান , মৃৎ শিল্পের দোকান। 

২। এমন কিছু ব্যবসায় আছে যেগুলাের জন্য বেশি অর্থের প্রয়ােজন পড়ে না । সে জাতীয় ব্যবসায়ের জন্য একমালিকানা ব্যবসায়ই সবচেয়ে বেশি উপযােগী বিবেচিত হয় । যেমন- পানের দোকান , সবজির দোকান । 

৩। যে সকল ব্যবসায়ে ঝুঁকি একেবারেই কম সেগুলাের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত । কেননা কম আয়ের ব্যক্তিরা সাধারণত ঝুঁকি এড়িয়ে চলতে চান , ফলে তারা এমন ব্যবসায়ই বেশি পছন্দ করেন । যেমন- চালের দোকান , ঔষধের দোকান ।

৪. কিছু কিছু ব্যবসায় আছে যেগুলাের প্রদত্ত পণ্য বা সেবার চাহিদা বিশেষ বিশেষ এলাকা বা নির্দিষ্ট শ্রেণির গ্রাহকদের নিকট সীমাবদ্ধ । সে সব পণ্য বা সেবার ক্ষেত্রে একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত । যেমন- স্কুলের সামনে বই – খাতার দোকান , কোনাে শিল্প কারখানার সামনে রেস্টুরেন্ট ।

৫. পঁচনশীল জাতীয় পণ্য যেমন ফল – মূল , শাক – সবজি , মাছ – মাংস ইত্যাদির ব্যবসায় সাধারণত একমালিকানা ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে ।

৬. ডাক্তারি , প্রকৌশল ও আইন ব্যবসায়ের মতাে ক্ষুদ্র আকারের পেশাভিত্তিক ব্যবসায় এবং প্রত্যক্ষ সেবাধর্মী ব্যবসায় যেমন লন্ড্রি , সেলুন , বিউটি পার্লার ইত্যাদি সাধারণত একমালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে ।  

৭. যে সব ব্যবসায় প্রদত্ত পণ্য – দ্রব্য ও সেবার সাথে ব্যক্তির বা মালিকের নৈপুণ্য , শিল্পকর্ম ও সুনাম জড়িত থাকে সেগুলাের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত । যেমন – চিত্রকর্মের দোকান , ছবি তােলার দোকান ইত্যাদি ।

ঙ নং প্রশ্নের উত্তরঃ 

একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণঃ 

একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণ সমূহ নিয়ে আলােচনা করা হলােঃ 

১। সহজে ব্যবসায় গঠন করা যায়ঃ এ জাতীয় ব্যবসায়ের গঠন বেশ সহজ । আইনগত ঝামেলা না থাকায় যে কেউ ইচ্ছা করলে ও উদ্যোগ নিলে এ ব্যবসায় শুরু করতে পারেন । তাই একমালিকানা ব্যবসায় খুবই জনপ্রিয়। 

২। স্বল্প মূলধনঃ এক মালিকানার ভিত্তিতে ব্যবসায় স্বল্প মূলধন নিয়ে এ জাতীয় ব্যবসায় গঠন করা যায় । মালিক নিজেই এ মূলধন যােগান দেন । সাধারণত নিজস্ব সঞ্চয় ও প্রয়ােজনে বন্ধু – বান্ধব , আত্মীয় – স্বজন এবং ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসায় পরিচালনা করেন ।

৩। স্বল্প জায়গাঃ একমালিকানা ব্যবসায় সাধারণত ছােটখাটো আকারের হয়ে থাকে । এর জন্য বেশি জায়গার প্রয়ােজন হয়না । এই ব্যবসায় সুবিধামতাে যেকোনাে স্থানে গড়ে তােলা যায় । 

৪। মতের অনৈক্য নেইঃ একমালিকানা ব্যবসায় যেকোনাে বিষয়ে মালিক নিজেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেন । অংশীদার না থাকায় মতের অনৈক্য হয় না ।

উপরােক্ত বিশ্লেষণ থেকে বােঝা যাচ্ছে যে , ব্যক্তিগত উদ্যোগ , স্বাধীনচেতা মনােভাব , স্বল্প পুঁজি ও স্বল্প শ্রম বিনিয়ােগ করে একমালিকানা ব্যবসায় যে কোনাে সময় যে কোনাে স্থানে শুরু করা যায় । এ ব্যবসায় আইনি জটিলতামুক্ত এবং এতে ঝুঁকিও কম । অন্যদিকে একমালিকানা ব্যবসায় ভােক্তাদের অত্যন্ত নিকটে থেকে তাদের পছন্দ ও রুচি অনুযায়ী পণ্য বা সেবা প্রদান করতে পারে । ফলে প্রাচীন ব্যবসায় সংগঠন হওয়া সত্ত্বেওমএকমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্র যেমন ব্যাপক , তেমনি সকলের নিকট এ ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তাও বেশি । বাংলাদেশের অর্থনৈতিক , সামাজিক , রাজনৈতিক , সাংস্কৃতিক অবস্থা বিবেচনায় একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে বেশি উপযােগী ।

২০২১ সালের এইচএসসি ৭ম সপ্তাহের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (১ম পত্র) এসাইনমেন্ট সমাধান /উত্তর 

Tag: এইচএসসি এসাইনমেন্ট সমাধান/উত্তর ২০২১ সালের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (৭ম সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৫,  ২০২১ সালের এইচএসসি ৭ম সপ্তাহের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (১ম পত্র) এসাইনমেন্ট সমাধান /উত্তর, বিশ্বব্যাপী ক্ষুদ্রায়তন একমালিকানা ব্যবসায়ই এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় উক্তিটির যথার্থতা নিরুপণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *